অনলাইনে লোন পাওয়ার উপায় | অনলাইনে সহজেই পাবেন ঋনের সুযোগ

বাংলাদেশে অনলাইনে লোন পাওয়ার উপায় Ways to get a loan online in Bangladesh: ব্যবসা কিংবা ব্যক্তিগত কাজ, যার কথাই বলুন না কেন। আমাদের জীবনে মাঝে মাঝেই প্রয়োজন পড়ে লোনের। মূলত প্রয়োজনের তাগিদে অনেক সময় দুয়ারে দুয়ারে ঘুরে বেড়াতে হয় লোনের আশায়। 

লোন পাওয়ার সহজ উপায়

কি? খুব জলদি কি আপনার টাকার প্রয়োজন? যদি তাই হয়ে থাকে তাহলে এখন আপনাকে সাহায্য করবে অনলাইন লোন। কারণ অনলাইনে ঋনের আবেদন করার মাধ্যম এখন বাংলাদেশেও শুরু হয়েছে। শুনে অবাক হচ্ছেন, তবে অবাক হলেও এটাই সত্যি।

দিন পাল্টেছে, সময় বদলেছে। কারণ, বর্তমান যুগ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির যুগ। যা আমাদের নিয়ে গেছে উন্নয়নের শীর্ষে। কথায় আছে বিপদে বন্ধুর পরিচয়, তাই আপনি যখন আর্থিক সংকটে পড়বেন তখন আপনাকে সবার আগে সাহায্য করতে এগিয়ে আসবে অনলাইনে লোনের সেবা নামক এই বন্ধুটি। 

তবে আপনার আর আমার মাঝে, আমরা এমন অনেকেই আছি, যারা এখনো পর্যন্ত জানি না,, কি কি উপায় অবলম্বন করলে অনলাইনে লোন নেওয়া সম্ভব। 

সহজ লোন বাংলাদেশ

তো দর্শক বন্ধুরা,, আমাদের আজকের কনটেন্টটি সেই সব ব্যাক্তি বর্গের জন্য তৈরি করেছি যারা বিপদে পড়ে আছেন, আর অনলাইনে লোন এর উপায় না জেনে “অনলাইন লোনের সেবা” নামক বন্ধুটিকে কাজে লাগাতে পারছেন না। তো দেরি না করে চলুন দেখে আসা যাক, অনলাইনে লোন পাওয়ার উপায় সমূহ সম্পর্কে।

বাংলাদেশে অনলাইনে লোন করার কথা ভেবে থাকেন তাহলে প্রথমত আপনাকে ভিজিট করতে হবে http://forms.mygov.bd ওয়েবসাইটে। এরপর নিচের চিত্রের অনলাইনে ঋণের আবেদন লেখাটির উপর ক্লিক করতে হবে। পরবর্তীতে আপনি একটি পেজে পৌঁছবেন যেখানে রয়েছে বাংলাদেশ ফরম অর্থাৎ সকল সেবায় ফরমের এক ঠিকানা। 

এরপর সেখানে গিয়ে আপনি অনলাইনে ঋণের আবেদন করতে ক্লিক করুন “অনলাইনে আবেদন করুন” লেখাটির উপর। তারপর সেখানে গিয়ে আপনি আপনার মত করে অনলাইনে ঋণের আবেদন ফরুম সঠিক নিয়মাবলী অনুসরণ করে পূরণ করুন। ব্যাস হয়ে গেল। 

অনলাইনে লোন পাওয়ার উপায়

অনলাইনে লোন পাওয়ার উপায়
অনলাইনে লোন পাওয়ার উপায়
অনলাইনে লোন পাওয়ার উপায়

বাংলাদেশে অনলাইনে লোন পাওয়ার উপায়

তবে উন্নত প্রযুক্তির যুগে অনলাইনে লোন নেওয়ার অন্যতম একটি উপায় পার্সোনাল লোন। যা বাইরের দেশে চালু আছে। বর্তমানে ইন্টারনেটের প্লে স্টোরে অনেক অ্যাপস আছে, যে অ্যাপস গুলো আপনাকে সঙ্গে সঙ্গে লোন দিয়ে দেবে। বলতে পারেন, সময় লাগবে মাত্র ২ মিনিট। অবাক হবেন না,, কথাটা সত্যি।

এই ধরুন যেমন আপনি অনলাইনে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট দুই মিনিটের মধ্যে আধার কার্ড দিয়ে খুলতে পারেন, ঠিক একইভাবে আপনি অনলাইনে আধার কার্ড আর পান কার্ড দিয়ে দুই মিনিটের মধ্যে লোন গ্রহণ করতেও পারেন।  কিন্তু দুঃখের বিষয় এটাই যে,,, বাংলাদেশে এখনো পর্যন্ত মোবাইল অ্যাপস এর মাধ্যমে লোন নেওয়ার কার্যক্রম শুরু হয়নি। তবে আশা করা যায় খুব সম্প্রতি এই সিস্টেমটি আমাদের দেশেও চালু হবে। 

তবে অ্যাপস ব্যবহার না করেও আমরা অনলাইনে ঋণের আবেদন করতে পারি। চলুন দেখে নেওয়া যাক অনলাইনে লোন করার উপায়।

তবে হ্যাঁ, মনে রাখবেন, সবকিছুরই একটি নির্দিষ্ট শর্তাবলী/নিয়মাবলী থাকে। যেগুলো আপনাকে অবশ্যই মেনে চলতে হবে। তাই অনলাইনে আপনি যদি পার্সোনাল লোন নিতে চান তাহলে সঙ্গে সঙ্গে জমা দিতে হবে কিছু জরুরী নথিপত্র। যেমন ধরুন,

  • আপনি মাসিক কত টাকা আয় করেন?.
  • আপনার ক্রেডিট স্কোর কেমন?.
  • আবার ক্রেডিট স্কোর ছাড়া ব্যক্তির লোন পরিশোধ করার ইতিহাস!
  • সেইসাথে ব্যাংকের সঙ্গে আপনার সম্পর্কের ওপর নির্ভর করবে পার্সোনাল লোন পাওয়ার সম্ভাবনা।
  • পাশাপাশি আপনি যে কোম্পানিতে কাজ করেন সেই কোম্পানির সুনাম এর ওপরও নির্ভর করে অনলাইনে পার্সোনাল লোন দেওয়া হয়ে থাকে।

অর্থাৎ মাসিক আয়, ক্রেডিট স্কোর, কোম্পানির সুনাম, লোন শোধ করার ইতিহাস ও ব্যাংকের সঙ্গে সম্পর্ক এর নথিপত্র।

অনলাইনে লোন নেওয়ার সেরা অ্যাপস কি কি?.

আমরা ইতোমধ্যে আপনাদের কে জানিয়েছি বর্তমান সময়ে এমন অনেক মোবাইল অ্যাপস রয়েছে যেগুলো অনলাইনে লোন নেওয়ার জন্য কার্যকর ভূমিকা প্রদান করে। সেই অ্যাপসমূহ গুলো হলো:

১. KreditBee (ক্রেডিট বি)

২. LazyPay (লেজি পে)

৩. Indiabulls Dhani (ইন্ডিয়াবুলস ধানি)

৪. mPokket (এম পকেট)

৫. ZestMoney (জেস্ট মানি)

অনলাইনে কোথায় আবেদন করবেন?.

আপনি যদি পার্সোনাল লোন এর জন্য আবেদন করতে চান তাহলে, যে ব্যাংকে সেলারি একাউন্ট রয়েছে সেই ব্যাংক থেকে পার্সোনাল লোন নিতে হবে। আর এই লোন নেওয়ার জন্য তেমন কোন নিয়ম বর্ধিত নেই। আপনার মন চাইলে আপনি অন্য যেকোনো ব্যাংকের ওয়েবসাইটে পার্সোনাল লোন এর জন্য আবেদন করতে পারেন। 

আর আপনি অনলাইন লোন আবেদন করতে যদি অ্যাপস ব্যবহার করেন। তাহলে প্রথমত, আপনাকে সেই অ্যাপসটি ডাউনলোড করতে হবে। আর এর পরবর্তীতে আপনার কোন কোন স্টেপ গুলো অনুসরণ করতে হবে সেগুলো অ্যাপসটিতে ক্লিক করলেই আপনি দেখতে পাবেন। অর্থাৎ অ্যাপস এর মধ্যে আপনাকে যা যা করতে বলা হবে আপনি করবেন এবং পরবর্তীতে পেয়ে যাবেন আপনার কাঙ্ক্ষিত লোন।

অনলাইনে লোন নিতে আপনাকে সংরক্ষণ করতে হবে যে সকল ডকুমেন্ট:

আধার কার্ড ( আধার কার্ডের সাথে যুক্ত মোবাইল নাম্বার)

পান কার্ড

একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট।

মনে রাখবেন উপরের উল্লেখিত ডকুমেন্টগুলো থাকলে আপনি অনলাইনে লোন আবেদন করার জন্য উপযুক্ত হিসেবে বিবেচিত হবেন। নতুবা ব্যর্থ হবেন।

কি?. এখন নিশ্চয়ই আপনার কাছে অনলাইনে লোন নেওয়ার বিষয় টা খুব সহজ হয়ে গেছে তাইনা?. 

আপনাদেরকে আরো সহজ ভাবে বোঝানোর জন্য এবার চলুন জেনে নেওয়া যাক মোবাইল অ্যাপস গুলোর বিস্তারিত কিছু তথ্য।

KreditBee (ক্রেডিট বি)

ক্রেডিট বি অন্যতম সেরা তাৎক্ষণিক লোন অ্যাপ্লিকেশন। আর এই অ্যাপসটি ব্যবহার করে আপনি শুধুমাত্র ৫ মিনিট থেকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে যেকোনো জায়গা থেকে লোন নিতে সক্ষম হবেন। এতে লোন এর পরিসীমা ১০০০ টাকা থেকে ১ লক্ষ টাকা।

LazyPay (লেজি পে)

লেজি পে অনলাইন লোন অ্যাপ্লিকেশনটি হলো ভারতের শীর্ষস্থানীয় লোন অ্যাপ্লিকেশন অ্যাপস।  এই অ্যাপটি ব্যবহার করে আপনি ১০.০০০.০০০ থেকে ১ লাখ টাকার মধ্যে লোন নিতে সক্ষম হবেন। তাই আপনার যদি এই মুহূর্তে খুব বেশি টাকার প্রয়োজন পড়ে তাহলে এখনি এই অ্যাপস টি তে গিয়ে আপনি আপনার কাঙ্খিত অ্যামাউন্ট বসিয়ে লোন নিতে পারেন।

Indiabulls Dhani (ইন্ডিয়াবুলস ধানি)

এবার চলুন জেনে নেওয়া যাক ইন্ডিয়াবুলস ধানি এপ্সটি সম্পর্কে। এটিও একটি অন্যতম সেরা ব্যক্তিগত লোন অ্যাপ্লিকেশন। এখান থেকে আপনি লোন নিতে পারেন ১ হাজার থেকে ১৫ লক্ষ টাকা। 

বিশেষ দ্রষ্টব্য: Indiabulls Dhani অ্যাপসটি গুগল প্লে স্টোর থেকে আপনি বিনামূল্যে ডাউনলোড করতে পারবেন।

Bangladeshe Online Lon Pauyar Upay

mPokket (এম পকেট)

এটিও একটি কার্যকরী মোবাইল অ্যাপস। এম পকেট এর উদ্দেশ্য হলো প্রয়োজনের সময় যেকোনো মুহূর্তে তাৎক্ষণিক লোন দেওয়া। আর এখান থেকে শুধুমাত্র ভারতের কলেজছাত্র-ছাত্রীরা লোন গ্রহণ করতে সক্ষম। তাই আপনি যদি ভারতের কোন স্টুডেন্ট হয়ে থাকেন, তাহলে প্রয়োজনের সময় ব্যবহার করতে পারেন এমপকেট নামক অনলাইন লোন মোবাইল অ্যাপস টি।

ZestMoney (জেস্ট মানি)

জেস্ট মানি ও একটি মোবাইল অ্যাপস। আপনি যদি অনলাইনে লোন সেবা গ্রহণ করতে চান তাহলে ক্রেডিট কার্ড ছাড়াই এই অ্যাপসটি থেকে অনলাইনে EMI তে শপিং করার সুবিধা গ্রহণ করতে পারবেন। 

বিশেষ দ্রষ্টব্য: আপনি মূলত জেস্ট মানি দিয়ে ফ্লিপকার্ট, অ্যামাজন থেকে ইএমআই তে মোবাইল, ল্যাপটপ ইত্যাদি জিনিস কিনতে লোন গ্রহণ করতে পারবেন।

তবে মনে রাখবেন, বাংলাদেশে এখনো পর্যন্ত অনলাইনে লোন নেওয়ার অ্যাপস বাবস্থা চালু হয়নি। তবে খুব তাড়াতাড়ি আমরাও অন্যান্য দেশের মত এই সুবিধাটি ভোগ করার সুযোগ পাবো ইনশাল্লাহ।

তো বন্ধুরা, আজ এ-পর্যন্তই। বাংলাদেশে অনলাইনে লোন পাওয়ার উপায় সম্পর্কিত যদি কোন সমস্যা থেকে থাকে তাহলে অবশ্যই আমাদের মন্তব্য করে জানাতে ভুলবেন না।

Mitu Khatun
Mitu Khatunhttps://allgovtjobcircular.com/
আমি মিতু। সবসময় লিখালিখি করতে ভালোবাসি। আর ভালোবাসি স্বাধীনভাবে বেচে থাকতে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Articles

x